হিন্দু মহিলা কেন সিঁথিতে সিঁদুর পরেন ? বিজ্ঞান নাকি অন্য তথ্য

হিন্দু মহিলা কেন সিঁথিতে সিঁদুর পরেন ? বিজ্ঞান নাকি অন্য তথ্য

হিন্দু মহিলা রা কেন সিঁথিতে সিঁদুর পরেন কেন ? এর পেছনে কি কোনো বিজ্ঞান ভিত্তিক তথ্য আছে নাকি কোনো রহস্য নাকি কোনো অন্ধবিশ্বাস যা ধর্মীয় রীতির আড়ালে যুগ যুগ ধরে চলে আসছে ? দেখে নিন

হিন্দু মহিলা – লাল রঙ শক্তি ও ভালোবাসাকে বহন করে বলে মনে করা হয়। কিন্তু ধর্ম নয় বৈজ্ঞানিকরাও সিঁদুর পরার কিছু বৈজ্ঞানিক ব্যাখা দিয়েছেন।প্রাচীন সময়কাল থেকে হিন্দু মহিলারা স্বামীর জন্য সিঁথিতে সিঁদুর পরে আসেন। সিঁদুরকে মেয়েদের ১৬ সিঙ্গারের মধ্যে একটা মানা হয়।

বিবাহিত মহিলাদের এক প্রকার প্রতীক হিসেবে দেখা হয় সিঁদুরকে। হিন্দু ধর্মে বলা হয় সিঁদুরের লাল রঙ স্বামীর দীর্ঘ জীবনের কামনা করে মহিলারা পরেন। লাল রঙ শক্তি ও ভালোবাসাকে বহন করে বলে মনে করা হয়। কিন্তু ধর্ম নয় বৈজ্ঞানিকরাও সিঁদুর পরার কিছু বৈজ্ঞানিক ব্যাখা দিয়েছেন। চলুন দেখে নেওয়া যাক হিন্দু ধর্ম মতে ও বৈজ্ঞানিক মতে সিঁদুর পরার ব্যাখা।

হিন্দু মহিলা কেন সিঁথিতে সিঁদুর পরেন ? বিজ্ঞান নাকি অন্য তথ্য

হিন্দু ধর্ম অনুযায়ী কেন সিঁদুর পরা উচিত

মহিলাদের সিঁদুর বিবাহিত মহিলার প্রতীক। যা তারা স্বামীর মঙ্গলকামনা করে পরে থাকে। হিন্দু ধর্মে মনে করা হয় , স্ত্রী তার সিঁদুরের শক্তিতে স্বামীকে যেকোনো বিপদের থেকে বাঁচাতে পারে। তাই ধর্মে বিবাহিত মহিলাদের বিয়ের পর সিঁদুর পরা রীতি।

হিন্দু শাস্ত্র মতে দেবী লক্ষ্মীকে মাথায় বিরাজমান মানা হয়। তাই দেবী লক্ষ্মীকে সন্মান করতে বিবাহিত মহিলারা সিঁথিতে সিঁদুর পরে থাকেন। দেবী লক্ষ্মীর কৃপায় স্বামী ও স্ত্রী একসাথে সুখে থাকেন মানা হয়। সম্পর্কে কোন সমস্যা আসে না দেবী লক্ষ্মীর কৃপায়।

হিন্দু শাস্ত্র অনুযায়ী সিঁদুরকে শক্তির প্রতীক মানা হয়।

প্রাচীনকাল থেকে বলা হয়ে আসছে লাল রঙ সৃষ্টির প্রতীক। লাল রঙকে প্রাকৃতিক সৃষ্টির সৃষ্টিকর্তা মানা হয়। তাই ভারতীয় নারীরা একান্ত প্রসাধন হিসেবে সিঁদুরকে প্রাচীনকাল থেকে ধারন করে আসছে। নারীর কপালে সিঁদুর সন্তান ধারণের ক্ষমতাকে বর্ণনা করে।

হিন্দু শাস্ত্রে বলা হয়। শরীরের বিভিন্ন স্থানে দেবতা বিরাজমান থাকেন। বলা হয় যে স্বয়ং ব্রহ্মা কপালে অধিষ্ঠান করেন। ব্রহ্মাকে সন্মান জানাতে ও তুষ্ট রাখতে বিবাহিত মহিলাদের কপালে সিঁদুর পরা শাস্ত্র মতে উচিত।

যদি সঠিক ভাবে বশীকরণ পদ্ধতি প্রয়োগ করা যায় তাহলে আজও বশীকরণ সম্ভব। এই লিঙ্কটি ওপেন করে জেনে নিন সাতটি বশীকরণের টোটকা।

বৈজ্ঞানিক মতে কেন সিঁদুর পরা উচিত মহিলাদের

সিঁদুর পরার কিছু বৈজ্ঞানিক দিক রয়েছে। যা বৈজ্ঞানিকরা ব্যাখা করেছেন। বৈজ্ঞানিক মতে সিঁদুর মস্তিষ্ক ও মাথার নার্ভের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে। মহিলারা যেখানে সিঁদুর পরেন, মাথার সেই জায়গায় গুরুত্বপূর্ণ নার্ভ থাকে। মেডিটেশানে সাহায্য করে।

হিন্দু মহিলা কেন সিঁথিতে সিঁদুর পরেন ? বিজ্ঞান নাকি অন্য তথ্য

ঘুম বাড়াতে সাহায্য করে সিঁদুর। সিঁদুর পরার সময় মাথায় চাপ প্রয়োগ হয়। যা মাথার জন্য এক প্রকারের ম্যাসাজ। যা মস্তিষ্ককে শান্ত রাখতে সাহায্য করে। ফলে ঘুমের সমস্যা দেখা দেয় না। বৈজ্ঞানিকদের মতে মাথার যে জায়গায় সিঁদুর পরা হয় তাকে আমরা বলি ব্রহ্মতালু। এই স্থানের সাথে ব্রেনের কানেকশান রয়েছে। ফলে সিঁদুর মহিলাদের মাথাব্যাথা , ট্রেস , দুশ্চিন্তা থেকে মুক্ত রাখতে সাহায্য করে।

হিন্দু মহিলা কেন সিঁথিতে সিঁদুর পরেন ? বিজ্ঞান নাকি অন্য তথ্য

বিয়ের পর মহিলাদের জীবনে নানা চাপ চলে আসে। সিঁদুরের মধ্যে থাকা পদার্থ মাথা শান্ত রাখতে সাহায্য করে। তাই সিঁদুর মন ও শরীর উভয়ের জন্য খুবই কার্যকরী।

প্রাচীন সময়কাল থেকে সিঁদুরকে ধর্মীয় ও বৈজ্ঞানিক উভয় দিক থেকে শুভ মনে করা হয়ে আসছে বিবাহিত মহিলাদের জন্য। তবে বর্তমান সময়ের মহিলাদের পাল্টা প্রশ্ন উঠে আসছে। যা যুক্তিসঙ্গত ভাবে সঠিক। কেন সব সময় মহিলারা নিজের বিবাহিত হওয়ার প্রমান দেবেন। কেন পুরুষরা স্ত্রীর জীবনের আয়ু বৃদ্ধির জন্য কোন প্রতীককে বহন করেন না। যাই হোক সিঁদুর পরা বা না পরা ব্যাক্তিগত পছন্দ বর্তমান সময়ে।

হিন্দু মহিলা রা কেন সিঁথিতে সিঁদুর পরেন এই লেখাটি আপনার ভালো লাগলে সকলকে শেয়ার করুন। আরো বিস্তারিত তথ্য থাকলে বা জানতে চাইলে কমেন্ট করে জানান।

x